সিন্ডিকেট, কালোবাজারে বিক্রি হচ্ছে টিকিট : দিশেহারা সৌদি প্রবাসী

Chattala24
  • 21
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    21
    Shares

ভিসার মেয়াদের পাশাপাশি টিকিট সংকটে দিশেহারা সৌদি প্রবাসীরা। এর মধ্যেই ফিরতি টিকিট রি-শিডিউল করার কথা বলে হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে অতিরিক্ত টাকা।অনেকটা প্রকাশ্যে সিন্ডিকেট করে কালোবাজারে বিক্রি হচ্ছে টিকিট। এ সিন্ডিকেটে কয়েকটি ট্রাভেল এজেন্সি আর বিমানের সেলস বিভাগের অসাধু কর্মকর্তাদের যোগসাজশের তথ্য পাওয়া গেছে। এমনকি অনলাইন প্লাটফর্মে অনেকটা প্রকাশ্যেই চালানো হচ্ছে প্রচারণা।

সৌদি প্রবাসীদে টিকিট পেতে দীর্ঘ লাইন অপেক্ষা আর হাহাকার কয়েকদিনের নিয়মিত চিত্র। কিন্তু সহজেই করা যাচ্ছে বিমানের ফিরতি টিকিটের তারিখ পরিবর্তন। যার সঙ্গে জড়িত বেশকয়েকটি এজেন্সি।

অনুসন্ধানে পাওয়া গেছে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক এবং হোয়াটসঅ্যাপে এই তৎপরতা চালাচ্ছে এজেন্সিগুলো। এমনকি ঢাকার বাইরের কয়েকটি এজেন্সিও এই কাজে যুক্ত। প্রচারণায় ক্ষুদে বার্তায় পাশপাশি ব্যবহার করা হচ্ছে ভয়েজ ম্যাসেজও।

এর সূত্র ধরে শনিবার রাজধানীর পুরানা পল্টনের জমজম টাওয়ারের সামনে থেকে একটি নাম্বারে ফোন দেয়া হয়। বলা হয় অফিসে যেতে। যাত্রী পরিচয়ে বিজনেস ওয়ার্ল্ড টুয়েন্টি ফোরের মাহামুদুর রহমানকে জানানো হয় বাংলাদেশ বিমানের ১০জন যাত্রীর টিকিট আছে যাদের ভিসার মেয়াদ খুব কম। ফিরতি টিকিট নিশ্চিত করতে তিনি টিকিট প্রতি ৩৮ হাজার টাকা চাইলেন।

মোবাইল নাম্বারের সূত্র ধরে আরও একজনের সাথে কথা হয়, তিনি বলছেন ২০ মিনিটে বিমানের সৌদি রিটার্ন টিকিট নিশ্চিত করতে পারবেন, টাকা লাগবে ২৫ হাজার। একটু কমানো যায় কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, বিমানের কর্মকর্তাকেই বড় অংকের টাকা দিতে হবে।

পরে নিজেদের পরিচয় দিয়ে মতিঝিলে তার অফিসে গেলে নাম পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে তিনি কয়েকজনের নাম্বার দেন যারা হরদম এই টিকিট পরিবর্তনের কাজ করছে, ঢাকার বাইরে থেকে। এদের একজনের সাথে টেলিফোনে কথা বলে সত্যতাও মিলেছে।

অভিযোগ রয়েছে, বাংলাদেশ বিমানের সেলস বিভাগের এর একটি শক্তিশালী চক্র টাকার বিনিময়ে এই কাজ করছে। বিমান কি এসব ঘটনার তদন্ত করবে?

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোকাব্বির হোসেন বলেন, “এই কাজটা যদি কেউ করে থাকে তবে এটি পুরোই অবৈধ। আমরা যদি ধরতে পারি তবে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। এখানে কোনো ছাড় দেয়া হবে না।”

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ফিরতি টিকিট রি-শিডিউল করার জন্য কোনো টাকা লাগে না; আর বাইরের কোন এজেন্সিকে রিশিডিউল করার দায়িত্বও দেয়নি বিমান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *