বিজ্ঞান মেলার নির্বাচিত ৪ রোবট বিজ্ঞান জাদুঘরে

  |  বুধবার, মে ২৬, ২০২১ |  ১২:৪৫ পূর্বাহ্ণ

রোবট প্রদর্শনের একটি বিশেষ উদ্যেগ গ্রহণ করেছে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর। দেশীয় প্রযুক্তি উদ্ভাবন নামে একটি গ্যলারি তৈরি করবে তারা, যেখানে বাংলাদেশ রোবট অলিম্পিয়াডের কিশোর বিজ্ঞানীদের তৈরি রোবট সংগ্রহ করা হবে।

এই উদ্দ্যেশ্যেকে সামনে রেখে রোবট মেলা প্রতিযোগিতায় বিজয়ী জাইমা যাহিন ওয়ারা, মিসবাহ উদ্দিন ইনান, জাহেদ হোসাইন নোবেল, ফাহিম জাওয়াদ, সানি জুবায়ের, জান্নাতুল ফেরদৌস ফাবিন, কাজী মোস্তাহিদ লাবিব এবং নাশীতাত জাহিদ রহমান-এর কাছ থেকে তাদের উদ্ভাবিত চার ধরনের রোবট কিনে নিয়েছে জাদুঘর কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার (২৫ মে) আনুষ্ঠানিকভাবে রোবটগুলো তৈরির খরচ দিয়ে নির্মাতাদের কাছ থেকে এগুলো কিনে নেয় জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর। ক্ষুদে বিজ্ঞানীদের তৈরি এই রোবটগুলোর মধ্যে ইনান ও জায়মা বানিয়েছে ভবিষ্যতের এক ট্রেন। যেটি চলবে কোনো চালক ছাড়াই।

টিম এটলাস নিয়ে এসেছে রোবট ‘সিগমা’। যে কোনো অগ্নিকাণ্ডের সময় এই রোবটকে দূর নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে ঘটনাস্থলে পাঠিয়ে আগুন নেভানো সম্ভব বলে জানালেন এই দলের প্রতিনিধি কলেজ ছাত্র সানি জুবায়ের।

বাংলাদেশ রোবট ফোর্সের জাহেদ হোসাইন নোবেল নিয়ে এসেছিলেন আরেকটি অগ্নিনির্বাপক রোবট। দূর নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে এটি দিয়েও আগুন নেভানো এবং আটকে পড়া ব্যক্তিদের অক্সিজেন সেবা দেওয়া সম্ভব বরে জানালেন জাহেদ।

কাজী মোস্তাহিদ লাবিব নিয়ে এসেছেন রোবট ‘মার্স রোভার’।

এই বিষয়ে জাদুঘরের মহাপরিচালক মোহাম্মাদ মুনীর চৌধুরী গণমাধ্যমকে বলেন, রোবট প্রযুক্তিকে পরিবেশ দূষণ রোধ, দুর্ঘটনার ঝুঁকি হ্রাস, মাদকের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ, নদীর পানিকে দূষণ মুক্তকরণসহ নিত্যনতুন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাস্তবিকভাবে প্রয়োগ করতে হবে। উদ্ভাবনে তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে আসতে হবে।

জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের সিনিয়র কিউরেটর (উপসচিব) এ. কে. এম. লুৎফুর রহমান সিদ্দীকী বলেন, ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে বিজ্ঞানমনস্ক করতেই আমাদের এই উদ্যোগ। আমরা চাই শিক্ষার্থীরা যখন জাদুঘর পরিদর্শনে আসবে তখন এই গ্যালারি দেখে অনুপ্রানিত হয়ে নিজেরাও রোবট তৈরিতে মনোনিবেশ করবে।