গুদামের লুট হওয়া ৩৩ লাখ টাকার মালামাল উদ্ধার

  |  সোমবার, মে ৩১, ২০২১ |  ১১:২২ পূর্বাহ্ণ

নগরের ডবলমুরিং থানাধীন কদমতলী পোস্তারপাড় জামে মসজিদের সামনে খাজা ট্রেডার্স নামে এক পরিবেশকের গুদাম থেকে লুট হওয়া আবুল খায়ের টোব্যাকো কোম্পানি লিমিটেড এর মালামাল উদ্ধার করেছে ডবলমুরিং থানা পুলিশ।

রোববার (৩০ মে) দিবাগত রাত পৌনে ২ টার দিকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন ডবলমুরিং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, চক্রের চোরাই কারবারের সঙ্গে জড়িত পিতা ও পুত্রকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুত্র কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্সের শিক্ষার্থী।

ওসি মোহাম্মদ মহসীন জানান, আবুল খায়ের গ্রুপের লুট হওয়া ৩৩ লাখ টাকার পণ্য উদ্ধার ও ঘটনায় জড়িত মূল হোতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা শুধু গত চার মাসেই কোটি টাকার বেশি মূল্যের মালামাল লুট করেছে। গত পাঁচ বছরে চক্রটি প্রায় ৫০টি ডাকাতির ঘটনায় প্রায় ১০ কোটি টাকার মালামাল লুট করে।

তিনি আরও জানান, সম্প্রতি পতেঙ্গায় গুদামের মালামাল লুট করার সময় বাধা দেওয়ায় একজনকে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়া কোথাও বাধাপ্রাপ্ত হলে গুলিও করে চক্রটি। এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানাতে সোমবার (৩১ মে) সকাল সাড়ে ১১ টায় থানায় সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার (২৭ মে) ভোর ৪টার দিকে খাজা ট্রেডার্স গুদামের মালামাল লুট করা হয়। পরিবেশক এম এম হোসাইন পারভেজ জানান, ভোর ৪টার দিকে ১০ থেকে ১২ জন ডাকাত দল অস্ত্রসহ এসে গুদামের তালা ভেঙে মালামাল নিয়ে গেছে। ক্যাশ টাকা নিতে পারেনি, তারা ফজরের আযানের একটু আগে এসেছিল। অফিসে শাহ আলম নামে এক স্টোরকিপার থাকতেন। গুদামের তালা ভাঙার শব্দে তিনি বের হলে তাকে দেশি অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে বসিয়ে রাখে ডাকাতরা। রাতে তারা পাহাড়তলী আবুল খায়ের অফিসেও হানা দিয়েছিল। এসময় দুই দারোয়ানকে বেঁধে রাখে। সুবিধা করতে না পেরে কদমতলীতে আমাদের গুদামে ডাকাত দল হানা দেয়। গুদাম থেকে ১০১ কার্টন মালামাল গিয়ে গেছে। যার দাম প্রায় ৪০ লাখ টাকা।

তিনি আরও জানান, কিছুদিন আগে মাদামবিবির হাট ও কামাল বাজারসহ একাধিক গুদামে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। তারা ট্রাক ও অস্ত্র নিয়ে এসে ডাকাতি করে চলে যায়। বাধা দিলে মানুষ হত্যা করে। এই ডাকাতদের একটি চক্র রয়েছে। তারা টার্গেট করে ডাকাতি করে।