হাটহাজারী ইউএনও’র ব্যতিক্রমী উদ্যোগ ‘১৫ মিনিটে সেবা’

  |  বৃহস্পতিবার, জুন ১০, ২০২১ |  ১২:৪০ অপরাহ্ণ

আবু সুফিয়ান। বাড়ি হাটহাজারী উপজেলার মধ্যম মাদার্শা ইউনিয়নে।

তার জন্ম নিবন্ধনে নাম ভুল আসে। সংশোধনে ইউনিয়ন পরিষদে ছুটেছেন কয়েক মাস। কিন্তু তাতেও কোনো সুফল পাননি।
হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে ‘১৫ মিনিটে সেবা’ কার্যক্রম চালুর খবর পেয়ে ছুটে আসেন সুফিয়ান। মাত্র ৫ মিনিটে নাম সংশোধন করে বাড়ি ফেরেন তিনি।

শুধু সুফিয়ানই নন, রয়েছেন আনোয়ারুল হক রিফাত, সৃজন রায়ও। তারা এ সেবা নিয়েছেন। তারা জানিয়েছেন, আমরা আসা মাত্রই আমাদের ফাইল দেখে স্বাক্ষর করা হয়েছে। যা আমাদের অবিশ্বাস্য মনে হয়েছে। যা ইউনিয়ন পরিষদে করতে আমাদের এক মাস ঘুরতে হয়েছে।

সূত্র জানায়, চলতি বছরের ১৭ জানুয়ারি থেকে হাটাহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে চালু হয়েছে ‘১৫ মিনিটে সেবা’। ইউনিয়ন পরিষদ থেকে প্রদত্ত জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন সনদের কোথাও কোনো ভুল হলে সেই ভুল সংশোধনের দায়িত্ব ২০২১ সাল থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে ন্যস্ত হয়। সেই সংশোধনের কাজটি সর্বোচ্চ ১৫ মিনিটের মধ্যেই করে দিচ্ছে উপজেলা প্রশাসন। নিবন্ধন সংশোধন করতে হলে আবেদনকারীকে অনলাইনে জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনের সংশোধন আবেদন করতে হয়। সেই আবেদন অনলাইনে ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যানের আইডি থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার আইডিতে জমা হয়। আবেদন জমা হওয়ার পর যাচাই-বাছাই করে সব কাগজ ঠিক আছে কিনা তা দেখা হয়। এরপর সর্বোচ্চ ১৫ মিনিটের মধ্যেই সেটা অনলাইনে অনুমোদন করে দিচ্ছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়।

জন্ম নিবন্ধন স্কুলে ভর্তি, পাসপোর্ট তৈরি, এনআইডি তৈরিসহ নানান কাজে ব্যবহৃত হয়। তাই এটাকে উপজেলা প্রশাসন জরুরি সেবা ঘোষণা করে সর্বোচ্চ ১৫ মিনিটের মধ্যেই নিষ্পত্তির চেষ্টা করছে। সব কাগজ ঠিক থাকলে ১৫ মিনিটের আগেই সেবাগ্রহীতা তার সেবা বুঝে পাচ্ছেন। যাদের সংযুক্ত কাগজপত্র যথাযথ থাকে না তাদের আবেদন অনলাইনে তাৎক্ষণিক নামঞ্জুর করে দেওয়া হয়।

১৭ জানুয়ারি থেকে ৯ জুন পর্যন্ত প্রায় ১ হাজার ৮০২ জন্ম নিবন্ধন সংশোধন আবেদন নিষ্পত্তি করেছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়।

হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুহুল আমিন বলেন, জন্ম নিবন্ধন একটি জরুরি সেবা। যা বিদ্যালয়ে ভর্তি, পাসপোর্ট এবং জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরিতে দরকার। আমার লক্ষ্য কাউকে যাতে এ কাজের জন্য আমার অফিসে দ্বিতীয়বার আসতে না হয়। কাগজপত্রের ঘাটতি থাকলে সেক্ষেত্রে ভিন্ন কথা। আমি দেখেছি এসব ফাইল দেখে ঠিক করতে ১৫ মিনিটের বেশি লাগে না, কোনো কোনো ক্ষেত্রে আরও কম সময়ে হয়ে যায়। এজন্য আমরা ১৫ মিনিট সেবা চালু করেছি।