রাঙ্গুনিয়ায় সড়কে জনমানবশূন্য ,মোড়ে মোড়ে পুলিশ

 মুহাম্মদ দেলোয়ার হোসাইন, রাঙ্গুনিয়া প্রতিনিধি। |  শুক্রবার, জুলাই ২, ২০২১ |  ৮:৩১ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সারা দেশে সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে রাঙ্গুনিয়ার সড়কগুলোতে জনমানবশূন্য ছিলো।মোড়ে মোড়ে রাঙ্গুনিয়ার থানার পুলিশের কর্মকর্তা ও সদস্যদের দায়িত্ব পালন অবস্থায় দেখা যায়। অটোরিকশা রিকশা ছাড়া তেমন কোনো বাহন দেখা যায়নি। রিকশা ও মোটরসাইকেল দিয়ে জনগণ গন্তব্যস্থল ও প্রয়োজন মিটাতে দেখা যায়।

‘শাটডাউনে’র দ্বিতীয় দিনে রাঙ্গুনিয়ার সড়কের সব বিপণিকেন্দ্রের শাটার বন্ধই ছিলো। তবে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান খোলা থাকতে দেখা গেছে। সড়কেও মানুষের আনাগোনা কম দেখা গেছে। কিছুক্ষণ পরপর পুলিশের টহল তৎপরতা দেখা গেছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, রাঙ্গুনিয়ার গোডাউন, মরিয়ম নগর, চন্দ্রঘোনা বাজারের মোড়গুলোতে পথচারীদের জিজ্ঞাসাবাদ করছেন পুলিশ সদস্যরা। সে সঙ্গে সড়কে চলাচল করা যানবাহন আটক করে কাগজপত্র যাচাই-বাছাই ও গন্তব্য জানতে চাচ্ছেন পুলিশ সদস্যরা। সদুত্তর পেলে তঁদের ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে, অন্যথায় তাদের চেকপোস্ট থেকেই ফিরিয়ে দিতে দেখা যায়। তবে চিকিৎসাসেবা নিতে যাওয়া রোগীদের কাগজপত্র দেখে ছেড়ে দিয়া হচ্ছে এবং
সড়কের বাহিরে গ্রামের ভিতরের সড়ক ও বাজারগুলোতে লোক চলাচল করতে দেখা যায়।

আজ শুক্রবার সকাল থেকে রাঙ্গুনিয়ার সড়ক -গুলোতে পুলিশকে টহল দিতে দেখা গেছে।লকডাউন বাস্তবায়নে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা কাজে সার্বিক সহযোগিতা করে যাচ্ছে পুলিশ সদস্যরা। অভিযান -কালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান ও উপজেলা ভূমি কমিশনার রাজিব চৌধুরী মানুষকে সচতেন করার পাশাপাশি সরকারি নির্দেশনা না মানায় জরিমানাও করেন।

রাঙ্গুনিয়ার থানার অফিসার মাহাবুব মিল্কী জানান, বিনা কারণে কেউ ঘর থেকে বের হলে এবং বিধিনিষেধ ভঙ্গ করলে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হওয়ার সময় রিকশা ব্যবহার করা গেলেও কোনো ইঞ্জিনচালিত যানবাহন ব্যবহার করা যাবে না। তা করলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান।