করোনার টিকা পেতে নিবন্ধন জটিলতায় ইবি শিক্ষার্থীরা

  |  রবিবার, জুলাই ৪, ২০২১ |  ১২:৪৯ অপরাহ্ণ

করোনা ভাইরাসের টিকা পেতে নিবন্ধন জটিলতায় পড়েছে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শিক্ষার্থীরা। সঠিক তথ্য পুরণ করেও সুরক্ষা অ্যাপে টিকার নিবন্ধন করতে পারছেনা বলে অভিযোগ শিক্ষার্থীদের। এছাড়াও যেসব শিক্ষার্থীর জাতীয় পরিচয়পত্র নেই তারা আবাসিক হওয়া সত্ত্বেও আবেদন করতে পারছেন না বলে জানা গেছে।

তথ্য মতে, টিকা নিতে ইউজিসির নির্দেশনা মোতাবেক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সুরক্ষা অ্যাপে নিবন্ধনের নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। গত ২ জুলাই বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার দপ্তর থেকে এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) মু. আতাউর রহমান স্বাক্ষরিত ওই প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের হলসমূহের আবাসিক শিক্ষার্থীদের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, কোভিড-১৯ টিকা গ্রহণের লক্ষ্যে (সঠিক এনআইডি নম্বর সহ) ইউজিসি থেকে প্রেরিত পত্র মোতাবেক সুরক্ষা অ্যাপে নিবন্ধন কার্যক্রম সম্পন্ন করতে হবে। এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিকা সংক্রান্ত ফরম যেসব শিক্ষার্থী পুরণ করেছে তাদেরও অ্যাপে নিবন্ধন করতে হবে।

তবে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর এখন পর্যন্ত কোন শিক্ষার্থী নিবন্ধন করতে পারে নি বলে জানা গেছে। তাই নিবন্ধনে জটিলতা দূর করে দ্রুত টিকা দেওয়ার দাবি জানিয়েছে শিক্ষার্থীরা। এদিকে সুরক্ষা অ্যাপে নিবন্ধন করতে জাতীয় পরিচয় পত্রের নম্বর বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ও দ্বিতীয় বর্ষের অনেক শিক্ষার্থীর জাতীয় পরিচয় পত্র না থাকায় বিপাকে পড়েছে তারা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সাদ্দাম হোসেন হলের আবাসিক শিক্ষার্থী আবু সোহান বলেন, সাম্প্রতি করোনার ভয়াবহতা বৃদ্ধি পেয়েছে। বিদ্যমান এই পরিস্থিতি দিন দিন খারাপ হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো দেড় বছর যাবৎ বন্ধ। টিকা প্রদান করে হল, ক্যাম্পাস খোলার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে গিয়ে টিকার জন্য কয়েকবার রেজিস্ট্রেশন করেছি। ইউজিসির সিদ্ধান্ত মোতাবেক এবার সুরক্ষা অ্যাপে রেজিস্ট্রেশন করতে বলা হয়েছে। আবাসিক ছাত্র হিসেবে রেজিস্ট্রেশন করতে বারবারই বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছি। নিজের সকল তথ্য প্রদান করার পরেও রেজিস্ট্রেশন করতে পারছি না। আমরা মানসিকভাবে বিকারগ্রস্ত। এরকম প্রহসন মেনে নেওয়া আমাদের জন্য কষ্টসাধ্য ব্যাপার। কোনরকম বিড়ম্বনা এবং প্রতিবন্ধকতা ছাড়াই আমরা রেজিস্ট্রেশন করে দ্রুত টিকা নিতে চাই।

বিশ্ববিদ্যালয়ের দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলের আবাসিক শিক্ষার্থী নাজিফা তাসনিন বলেন, ‘আমাদের অনেকেরই জাতীয় পরিচয় পত্রের কার্ড নাই। এ মুহুর্তে আমরা কীভাবে সুরক্ষা অ্যাপে নিবন্ধন করবো। দুশ্চিন্তায় আছি। আমাদের ভোগান্তি কমাতে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) আতাউর রহমান বলেন, ‘ইউজিসি থেকে এ সংক্রান্ত একটা চিঠি পেয়ে আমরা বিজ্ঞপ্তি দিয়েছি। পরে বিভিন্ন শিক্ষার্থীদের থেকে এমন অভিযোগ পেয়ে আমরা সংশ্লিষ্ট দপ্তরে যোগাযোগের চেষ্টা করছি।’

প্রসঙ্গত, গত ২ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) নির্দেশনা অনুযায়ী ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক শিক্ষার্থীদের করোনার টিকা নিশ্চিত করতে তালিকা চেয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। পরে গত ১৪ মার্চ আবাসিক ও অনাবাসিক সকলের তালিকা চেয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে কর্তৃপক্ষ। তবে আবেদন কম হওয়ায় তৃতীয় বার ২৫ মে পর্যন্ত সময় বৃদ্ধি করা হয়। সর্বশেষ চতুর্থ বারের মতো ৩০ মে পর্যন্ত আবেদনের মেয়াদ বৃদ্ধি করে কর্তৃপক্ষ। কর্তৃপক্ষের আহ্বানে টিকা নিতে আবেদন করে ইবির মোট ৬ হাজার ৬০৭ জন শিক্ষার্থী। আবেদনকারী আবাসিক শিক্ষার্থীদের দ্রুত টিকা নিশ্চিত করার লক্ষে সুরক্ষা অ্যাপে রেজিস্ট্রেশন করতে বলেছে ইবি কর্তৃপক্ষ। পর্যায়ক্রমে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব শিক্ষার্থীদের টিকার আওতায় আনা হবে বলে জানা গেছে।