লাখো মানুষের ঢলে চট্টগ্রামে ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উদযাপন

47

নিউজডেস্ক।। মহামারি করোনা ও শুক্রবার জুমার নামাজের কারণে চট্টগ্রামে এবার ঈদে মিলাদুন্নবীর জুলুস সংক্ষিপ্ত করা হলেও লাখো ধর্মপ্রাণ মানুষের ঢল নামে নগরীতে। অংশগ্রহণকারী অনেকের হাতে মহানবী (সা.) কে অবমাননার অভিযোগে ফ্রান্সের পণ্য বর্জনের আহবানসহ বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড দেখা গেছে।

বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (স.) এর জন্মদিন উপলক্ষে আজ ১২ রবিউল আওয়াল চট্টগ্রাম শহর জুড়ে জশনে জুলুসের আয়োজন করা হয়েছে। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) বিশেষ শাখা থেকে সীমিত পরিসরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে জুলুস আয়োজনের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার (৩০ অক্টোবর) সকাল ৮টায় নগরীর ষোলশহর জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া মাদ্রাসা থেকে শোভাযাত্রা বের হয়ে নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার মাদ্রাসায় গিয়ে শেষ হয়। জুলুসে নেতৃত্ব দেন আনজুমানের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মহসিন, সেক্রেটারি মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, গাউসিয়া কমিটির চেয়ারম্যান পেয়ার মোহাম্মদ, জামেয়ার অধ্যক্ষ মুফতি অছিউর রহমান আলকাদেরি।

পরে সেখানে আলোচনা সভা, জুমার নামাজ, মিলাদ, কিয়াম ও মুনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।শোভাযাত্রায় অংশ নিতে সকাল থেকে কেউ পায়ে হেঁটে কেউবা সুসজ্জিত যানবাহনে চড়ে ষোলশহর খানকায় এসে জড়ো হয়।

প্রতি বছর আনজুমান রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া ট্রাস্টের আয়োজনে জুলুসে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা অংশগ্রহণ করলেও এবার করোনার কারণে চট্টগ্রামের বাইরে থেকে কাউকে অংশ নিতে নিষেধ করেছে আয়োজকরা। এড়াছা এবারের জুলুসে পাকিস্তান দরবারে ছিরকোট শরীফ থেকে সৈয়দ মুহাম্মদ তাহের শাহ অংশগ্রহণ করেননি।

১২ রবিউল আওয়াল বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর জন্মদিন উপলক্ষে ১৯৭৪ সাল থেকে চট্টগ্রামে জশনে জুলুস আয়োজন করা হচ্ছে। এছাড়াও বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় ।