কক্সবাজার-সেন্টমার্টিন রুটে চালু হতে যাচ্ছে রাজকীয় ক্রুজশিপ

  |  শনিবার, ডিসেম্বর ১৯, ২০২০ |  ৯:৪৬ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি।।

কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিন রুটে পর্যটকদের জন্য অত্যাধুনিক ক্রুজশিপ এনেছে চট্টগ্রামের প্রতিষ্ঠান কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্স। রোববার (২০ ডিসেম্বর) পর্যটক পরিবহনে যুক্ত হবে আধুনিক এ জাহাজটি। চট্টগ্রামের পতেঙ্গা ওয়াটার বাস টার্মিনাল থেকে যাত্রা শুরু করবে এমভি বে-ওয়ান।

সোমবার (২০ ডিসেম্বর) বেলা দুইটায় চট্টগ্রাম নগরীর পতেঙ্গায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী জাহাজটির উদ্বোধন করার কথা রয়েছে। পরদিন ২১ ডিসেম্বর সকাল নয়টায় এমভি কর্ণফুলী এক্সপ্রেসের মাধ্যমে অতিথিদের কক্সবাজার নিয়ে যাওয়া হবে।

চট্টগ্রামের কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্স নামের প্রতিষ্ঠানটি জাপান থেকে কিনেছে জাহাজটি। কেনার পর সংস্কার করে জাহাজটি পুরোদমে যাত্রী পরিবহনে প্রস্তুত এখন।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, এমভি বে-ওয়ান জাহাজটির দৈর্ঘ্য ৪০০ ফুট ও প্রস্থ ৫৫ ফুট। এর গভীরতা ৫ দশমিক ৪ মিটার। জাহাজটির গ্রস টনেজ ৫০১৯, জাহাজটিতে মোট ১১২০০ বিএইচপিসম্পন্ন মেইন প্রপালেশন ইঞ্জিন রয়েছে, যা দিয়ে জাহাজটি প্রতি ঘন্টায় ২৪ নটিক্যাল মাইল গতিতে ছুটতে পারে। তবে সেন্টমার্টিন রুটে এটি ১৮ থেকে ২০ নটিক্যাল মাইল গতিতে চলবে। উত্তাল সমুদ্রের ঢেউ মোকাবেলায় জাহাজটিতে ফিন স্ট্যাবিলাইজার সংযুক্ত আছে।

জাপানের মিতসুবিশি হেভি ইন্ডাস্ট্রিজের তৈরি জাহাজটিতে আছে কেবিন, প্রেসিডেন্ট স্যুট ও সাধারণ আসন মিলিয়ে প্রায় দুই হাজার আসন। আছে রেস্তোরাঁও। জাহাজটিতে অপারেটিং ক্রু রয়েছেন ১৭ জন। অন্যদিকে যাত্রীসেবায় নিয়োজিত থাকছেন ১৫০ জন ক্রু। স্বাচ্ছন্দ্যময় ভ্রমণ, রাত্রিযাপন ও বিভিন্ন স্বাদের খাবার পরিবেশনের ব্যবস্থা আছে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্সের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ (এডমিন) কামাল উদ্দিন চৌধুরী চট্টগ্রাম প্রতিদিনকে বলেন, জাহাজটির আগে নাম ছিল ‘সিলভিয়া সারু’। সেটি আমরা কিনে নেওয়ার পর নাম হয়েছে ‘এমভি বে ওয়ান’। কক্সবাজার-সেন্টমার্টিন নৌ রুটে চলবে এ জাহাজ। মানসম্পন্ন ও বিলাসবহুল যাত্রীসেবার জন্য এ জাহাজ আনা হয়েছে। এটি এসেছে জাপানের ইয়োকোহামা বন্দর থেকে।

কক্সবাজারের মেরিন ড্রাইভ সড়কের দরিয়ানগরে জাহাজটির জন্য নতুন একটি জেটি নির্মাণ করা হয়েছে বলে জানিয়ে এই কর্মকর্তা বলেন, কিছুদিন আগে কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্সের অপর একটি জাহাজ ‘কর্ণফুলী এক্সপ্রেস’ কক্সবাজার থেকে সেন্টমার্টিন রুটে প্রথম সরাসরি যাত্রী পরিবহন শুরু করেছিল। সেটিও যুক্ত থাকবে যাত্রীসেবায়।

এর আগে টেকনাফ থেকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের জাহাজ দিয়ে সেন্টমার্টিনে যাত্রী পরিবহন করা হতো। কক্সবাজার সদরের নুনিয়ারছড়া এলাকা থেকে জাহাজ ছাড়া হতো কর্ণফুলী এক্সপ্রেস।

শিপ বিল্ডার্সের কর্মকর্তা কামাল উদ্দিন বলেন, আধুনিক সুযোগ সুবিধা নিয়ে যাত্রী পরিবহনে এবার যুক্ত হলো এমভি বে ওয়ান। এটিতে দুই হাজারের মতো যাত্রী পরিবহন করা যাবে।

তিনি আরো বলেন, এম ভি বে ওয়ান জাহাজ টির দৈর্ঘ্য ৪০০ ফুট ও প্রস্থ ৫৫ ফুট। জাহাজ টির গ্রস টনেজ ৫০১৯, জাহাজ টিতে মোট ১১২০০ বি এইচ পি সম্পন্ন মেইন প্রপালেশন ইঞ্জিন রয়েছে। যার দ্বারা জাহাজ টি প্রতি ঘন্টায় ২৪ নটিক্যাল মাইল গতিতে ছুটতে পারে। উত্তাল সমুদ্র মোকাবেলায় জাহাজ টিতে ফিন স্ট্যাবিলাইজার সংযুক্ত আছে।