৪ উইকেট হারিয়ে বিপাকে বাংলাদেশ

  |  শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২১ |  ৫:৩০ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার মিরপুর টেস্টের দ্বিতীয় দিনে বেশি একটা সুবিধা করে উঠতে পারছেনা টাইগাররা। দিনের দ্বিতীয় সেশনে বোলিংয়ে কিছুটা ঘুরে দাঁড়াতে পারলেও নিজেদের ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই হোঁচট খায় বাংলাদেশ। শতক পূরণের আগে চার উইকেট হারিয়াছে টাইগাররা।

ক্যারিবীয়দের প্রথম ইনিংসের ৪০৯ রানের বিপরীতে খেলতে নেমে প্রথমেই দুই টপ-অর্ডারকে হারায় বাংলাদেশ। ইনিংসের প্রথম ওভারেই গ্যাব্রিয়েলের শিকারে পরিণত হন ওপেনার সৌম্য সরকার। রানের খাতা খোলার আগেই মায়ার্সের হাতে ক্যাচ তুলে দেন সৌম্য। তার পরে তামিমের সঙ্গে দলের হাল ধরতে ক্রিজে আসেন নাজমুল হোসেন শান্ত। কিন্তু মাত্র এক ওভারের ব্যবধানে নিজের দ্বিতীয় ওভারে তাকেও সাজঘরে ফেরান গ্যাব্রিয়েল। সৌম্যের মতো শান্ত ক্যাচ তুলে দেন বনারের হাতে। মাত্র ৪ রান করে দলীয় ১১ রানের মাথায় ফেরেন শান্ত।

এরপর মাঠে তামিমের সঙ্গী হন মুমিনুল হক। প্রায় ৫৮ রান আসে এই জুটি থেকে। কিন্তু তা বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। ১৫তম ওভারে কর্নওয়ালের বলে দা সিলভার হাতে ক্যাচ তুলে দেন টাইগার অধিনায়ক। মুমিনুলের ব্যক্তিগত ২১ রানে দল তখন ৬৯ এর কোঠায়।

তার পথ ধরে মাত্র ২ রানের ব্যবধানে ব্যক্তিগত ৪৪ রানে ফেরেন আরেক ওপেনার তামিম ইকবাল। আলহারি জোসেফের বলে শেইন মোসলের হাতে ক্যাচ তুলে দেন তামিম।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ১৮ ওভার শেষে ৪ উইকেটের বিনিময়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৭৫ রান।

বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজের মিরপুর টেস্টের দ্বিতীয় দিনের শুরুটা খুব একটা সুখকর হয়নি বাংলাদেশের। তবে একটু দেরিতে হলেও দ্বিতীয় সেশনে ঘুরে দাঁড়িয়েছে টাইগাররা। ১৪২ ওভার শেষে ক্যারিবীয়দের থাকাতে সক্ষম হলেও ততোক্ষণে তাদের সংগ্রহ দিয়ে দাঁড়িয়েছে ৪০৯ রানে।

প্রথম সেশনের শুরু থেকেই ক্যারিবীয়দের স্কোরবোর্ডে যুক্ত হতে থাকে রান। সেই সেশন শেষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সংগ্রহ ১১৯ ওভারে ৬ উইকেটের বিনিময়ে ৩২৫ রান। প্রথম টেস্টের মতো এবারও শতক পূরণের আগেই ফিরলেন এনক্রুমা বনার। টানা দুই ইনিংসে সেঞ্চুরির খুব কাছাকাছি গেলেও শেষ পর্যন্ত শতকের স্বাদ নিতে ব্যর্থ হন বনার। আগের টেস্টে ৮৬ রান করেছিলেন তিনি। এবার ফিরলেন ৯০ রানে। দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশনে দলীয় ২৬৬ রানের মাথায় মিরাজের ৯৯তম শিকারে পরিণত হন বনার। ওভারের তৃতীয় বলে মিথুনের হাতে ক্যাচ তুলে দেন তিনি। সেই ক্যাচ নিতে ভুল করেননি মিথুনও। ২০৯ বল খেলে ব্যক্তিগত ৯০ রানে সাজঘরে ফিরলেন বনার।

এরপর দলের হাল ধরেন দা সিলভা ও আজমেরি জোসেফ। দুইজনই অর্ধশতকের ঘর পেরোলেও শতকের স্বাদ নিতে পারেননি কেউই। তাইজুলের শিকারে পরিণত হওয়া দা সিলভা ফেরেন ৯২ রানে। আর ৮২ রান করা জোসেফের উইকেটটি তুলে নেন আবু জায়েদ রাহি।

এরপর আর জোমেল ওয়ারিকন আর শ্যানন গ্যাব্রিয়েল বেশি একটা সুবিধা করতে পারেনি। দশক পূরণের আগেই ফিরে যান দুইজন। শেষ পর্যন্ত ক্যারিবীয়দের ইনিংস থামে ৪০৯ রানে। প্রথম ইনিংস শেষে রাহকিম কর্নওয়াল অপরাজিত ছিলেন ৪ রানে।

বাংলাদেশের পক্ষে আবু জায়েদ রাহি ও তাইজুল নিয়েছেন ৪টি করে উইকেট। পাশাপাশি মেহেদী হাসান মিরাজ ও সৌম্য সরকার নিয়েছেন একটি করে উইকেট।