শহীদ পরিবারের দুই সন্তানের নিয়োগপত্র দিলেন মেয়র রেজাউল

  |  শুক্রবার, মার্চ ১৯, ২০২১ |  ৫:১০ অপরাহ্ণ
শহীদ পরিবারের দুই সন্তানের নিয়োগপত্র দিলেন মেয়র রেজাউল

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসটিকে কেন্দ্র করে ১৯৮৯ সালে কর্মসূচি চলাকালে ছাত্রলীগের মিছিলে দুর্বৃত্তরা বোমাবর্ষণ করলে সাড়ে ১১ বছর বয়সী উত্তম বিশ্বাস নামে এক স্কুলছাত্র নিহত হয়।

এ বিয়োগান্তক ঘটনাটি তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার নজরে এলে ওই বছরের ২৫ জানুয়ারি তিনি চট্টগ্রাম সফরে এসে পরিবারটির পাশে দাঁড়ান এবং প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন নিহত বালকের বাবা অমলকান্তি বিশ্বাসের কোনো সন্তান যদি চাকরির উপযুক্ত হয় তার কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হবে।

এরই আলোকে বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী সামনে রেখে অমল কান্তি বিশ্বাসের দুই সন্তান সুলেখা বিশ্বাস ও মনোজ বিশ্বাসকে সিটি করপোরেশনের স্বাস্থ্য সহকারী ও কম্পিউটার অপারেটর পদের নিয়োগপত্র তুলে দেন মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী।

এ সময় মেয়র বলেছেন, আমাদের রাষ্ট্রনায়ক বঙ্গবন্ধু তনয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবচেয়ে বেশি মানবিক কর্তব্যবোধ পালন করে যাচ্ছেন। তারই ধারাবাহিকতায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে সব পরিবার লড়াই-সংগ্রামে অবদান রেখেছে এবং আত্মত্যাগ করেছে তাদের পুনর্বাসন ও কর্মসংস্থানের জন্য পর্যায়ক্রমে পদক্ষেপ নিচ্ছেন। তিনি এই মুজিববর্ষে গৃহহীনদের আবাসন সংস্থানসহ কর্মসংস্থানের উদ্যোগ নিয়েছেন। পাশাপাশি মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত ১২ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছেন। এমনকি করোনাকালে যখন বিশ্বব্যাপী অর্থনীতির চাকা স্থবির তখনও তিনি প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে মানবিক সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন।

নিয়োগপত্র দেওয়ার সময় উপস্থিত ছিলেন পাথরঘাটা ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পুলক খাস্তগীর, চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মুহাম্মদ মোজাম্মেল হক, মেয়রের একান্ত সচিব মুহাম্মদ আবুল হাশেম প্রমুখ।

আদিবাসীদের ওপর অযৌক্তিক কর চাপানো হবে না

মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছেন, নগরে যারা আদীবাসী তাদের ওপর হোল্ডিং ট্যাক্সসহ কোনো ধরনের অযৌক্তিক কর আরোপ করা হবে না। তবে কর পরিশোধের ক্ষেত্রে সবার সঙ্গে আলাপ আলোচনার ভিত্তিতে সহমত পোষণ করে আবশ্যিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

বিকেলে চৈতন্যগলির নগর মহল্লা সমিতির কার্যালয়ে চট্টগ্রাম নগর মহল্লা সর্দার কমিটির সঙ্গে তাকে দেওয়া সংবর্ধনা ও মতবিনিময় সভায় এ অভিমত ব্যক্ত করেন।

তিনি নগরের উন্নয়নে শুধু চসিকের ওপর নির্ভরশীল না হয়ে সব নগরবাসীকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন নন্দিত ও বাসযোগ্য নগর গড়ে তুলতে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

নগর মহল্লা সর্দার কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ ইউসুফ সর্দারের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন কাউন্সিলর আব্দুস সালাম মাসুম, পুলক খাস্তগীর, কাউন্সিলর মোহাম্মদ আতাউল্লাহ চৌধুরী, সাবেক কাউন্সিলর মোহাম্মদ আবু বক্কর চৌধুরী, সর্দার কমিটির সহ-সভাপতি শওকত হোসেন কমরু, জাহেদ হোসেন, মোহাম্মদ আলি বকস, মোহাম্মদ শাহাবুদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক মকসুদ আহামদ সর্দার, মোহাম্মদ আবুল কালাম, মোহাম্মদ নুরুল হক, মোহাম্মদ তারেক সর্দার, সহ সম্পাদক মোহাম্মদ সালাউদ্দিন, শিক্ষা ও সংস্কৃতি সম্পাদক মোহাম্মদ জাহেদ হোসেন সর্দার, ত্রাণ সম্পাদক নাছির আহমদ প্রমুখ।