মোটরসাইকেল কেনার টাকা না পেয়ে মেয়ের হাতে মা খুন

  |  মঙ্গলবার, মার্চ ২৩, ২০২১ |  ৯:০৫ অপরাহ্ণ

নাটোরের গুরুদাসপুরে স্বামীর জন্য মোটরসাইকেল কেনার টাকা না পেয়ে মা সেলিনা বেগমকে (৪৫) গলা কেটে হত্যা করেছেন মেয়ে ববি আক্তার। সোমবার বিকেলে নিজ ঘরে সেলিনা বেগমকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় পুলিশ ববি আক্তারকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। পুলিশ জানায়, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ববি তার মাকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, সোমবার সকালে ববি মায়ের কাছে তার স্বামীর জন্য মোটরসাইকেল কিনে দেওয়ার জন্য ১ লাখ টাকা দাবি করেন। এ নিয়ে মা-মেয়ের মধ্যে ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে ববি ব্লেড দিয়ে তার মায়ের গলা কেটে তাকে হত্যা করেন। সোমবার সন্ধ্যায় ঘটনাটি জানাজানি হয়। সিআইডি ও পিবিআই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

নিহতের স্বামী নজরুল ইসলাম জানান, প্রতিদিনের মত সোমবার সকালে তিনি কর্মস্থলে যান। তার মেয়ে ববি বাসায় ছিল। সোমবার সন্ধ্যার দিকে তিনি ফোনে হত্যার খবর পান।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ববি তাদের বাড়ির ভাড়াটিয়া শিরিন শিলাকে নিয়ে কাপড় কিনতে চাঁচকৈড় বাজারে যান। তার আগে তার মাকে গলা কেটে হত্যা করেন। বাজার থেকে ফিরে এসে কে বা কারা তার মাকে খুন করেছে বলে নাটক সাজিয়ে কান্না শুরু করে চাচাদের নাম বলতে থাকেন। ঘটনার পর খবর পেয়ে পুলিশ তাদের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে ববির ভ্যানেটি ব্যাগ থেকে নিহত সেলিনা বেগমের গহনা এবং বাড়ির কিছু টাকা পায়। এতে পুলিশের সন্দেহ হলে ববিকে জিজ্ঞাসা করা হলে খুনের কথা স্বীকার করে।

ভাড়াটিয়ে শিরিন শিলা বলেন, তিনি বাজারে যেতে চাননি। তাকে অনেক অকুতি করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আসার পর তার মাকে কে যেন খুন করেছে বলে চিৎকার করতে থাকে।

গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সেলিনার ছোট মেয়ে ববি তার মাকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। ববিকে আটক করে থানায় নেওয়া হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য উদ্ধার করে নাটোর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

গুরুদাসপুর-সিংড়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার জামিল আকতার বলেন, পারিবারিক কলহে তাকে হত্যা করা হয়েছে। এ বিষয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে বিস্তারিত জানানো হবে।